1. admin@dainiksomoyersathe.com : admin :
  2. admin@hasibitsolution.com : Hasib :
  3. info.popularhostbd@gmail.com : PopularHostBD :
শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ০৭:১৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
৩০০ চালককে ফ্রি লাইসেন্স দিলেন চেয়ারম্যান- দৈনিক সময়ের সাথে! রেলের জলাশয় ভরাটের অভিযোগ, কর্তৃপক্ষ নিরব- দৈনিক সময়ের সাথে! যমুনার পানি সামান্য কমলেও বিশুদ্ধ পানি ও খাবার সংকটে বানভাসি মানুষ- দৈনিক সময়ের সাথে! উৎসবমুখর পরিবেশে রথযাত্রা অনুষ্ঠিত- দৈনিক সময়ের সাথে! বন্যার স্রোতে ভেঙে গেছে সড়ক, চরম দুর্ভোগে গ্রামবাসী- দৈনিক সময়ের সাথে! ভূঞাপুরে পানিবন্দি কয়েক হাজার মানুষ- দৈনিক সময়ের সাথে! জামালপুরে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান কারাগারে, হরতাল পালন করছে সমর্থকরা- দৈনিক সময়ের সাথে! ট্রেনের ৩২টি টিকিটসহ কালোবাজারি চক্রের ৫ সদস্য আটক- দৈনিক সময়ের সাথে! কলেজ কর্তৃপক্ষের প্রতারণার শিকার ২২ শিক্ষার্থী- দৈনিক সময়ের সাথে! বাঘারপাড়ার জামদিয়ায় ব্যতিক্রম ঘোড়দৌড় হতে যাচ্ছে- দৈনিক সময়ের সাথে!

মেলান্দহে দেবের ছড়া কারিগরি স্কুল এন্ড বি এম কলেজের অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ – দৈনিক সময়ের সাথে।

রাসেল রানা
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ৬১ বার পড়া হয়েছে

মোঃ রাসেল রানা
জামালপুর জেলা প্রতিনিধিঃ

গত ১৫ ফেব্রুয়ারি মেলান্দহ উপজেলায় এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ায়,পরীক্ষার আগের দিন গত ১৪ ফেব্রুয়ারি উক্ত কলেজে শিক্ষার্থীদের নিকট হতে বকেয়া বেতন সহ এস এস সি পরীক্ষার এডমিট কার্ডের জন্য , প্রতি জন শিক্ষার্থীদের নিকট হতে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করে নেয় অত্র কলেজের প্রিন্সিপাল রতন। উক্ত কলেজের শিক্ষার্থী ও অভিভাবক অভিযোগ করে জানান, ১৪ ফেব্রুয়ারি সকাল থেকে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সারাদিন বসিয়ে রাখে। বিকেলে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকগণ প্রিন্সিপাল রতনের নিকট এডমিট কার্ডের দাবী করলে,তিনি তাদের সাথে অশালীন আচরণ ও বিভিন্ন গালিগালাজ করা সহ ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। এ ঘটনায় দেবের ছড়া কারিগরি স্কুল এন্ড বিএম কলেজ মাঠ চত্বরে হই হুল্লা সৃষ্টি হয় এবং ঘটনাটি চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। ঘটনার পর মুহুর্তে, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকগণরা উক্ত প্রতিষ্ঠানের প্রিন্সিপাল রতনের অশালীন গালিগালাজ ও অতিরিক্ত টাকা আদায়ের বিষয়টি জামালপুর জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও মেলান্দহ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার নিকট ন্যায় বিচার দাবি করে ঘটনাটি অবগত করেন। পরবর্তীতে উক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মেলান্দহ থানা পুলিশ পৌঁছালে, প্রতিষ্ঠানটি তালা বদ্ধ করে সকল শিক্ষকগণ পালিয়ে যায়। এসব দুর্নীতির তথ্য জানাজানি হলে ১৪ ফেব্রুয়ারি গভীর রাতে অত্র কলেজের শিক্ষক এডমিট কার্ড বঞ্চিত শিক্ষার্থীদের বাড়িতে গিয়ে এসএসসি পরীক্ষার এডমিট কার্ড পৌঁছে দেয়।
শুধু তাই নয়,প্রিন্সিপাল রতন উক্ত অনিয়ম আর দুর্নীতির বিষয়টি ধামাচাপা দিতে নানা ধরনের প্রক্রিয়াসহ কিছু সাংবাদিকদের ভুল বুঝিয়ে নানা রকম কৌশল অবলম্বন করেন। বর্তমানে এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অনিয়ম আর দুর্নীতির কর্মকাণ্ডের জন্য শিক্ষা ডিপার্টমেন্টের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার নিকট সঠিক তদন্ত সহ ন্যায়বিচার প্রার্থনা করছেন উপজেলার সর্বস্তরের জনগন।

সংবাদ টি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved
Design BY POPULAR HOST BD